Cheap Jerseys Wholesale Jerseys Cheap Jerseys Wholesale Jerseys Cheap Jerseys Cheap NFL Jerseys Wholesale Jerseys Wholesale Football Jerseys Wholesale Jerseys Wholesale NFL Jerseys Cheap NFL Jerseys Wholesale NFL Jerseys Cheap NHL Jerseys Wholesale NHL Jerseys Cheap NBA Jerseys Wholesale NBA Jerseys Cheap MLB Jerseys Wholesale MLB Jerseys Cheap College Jerseys Cheap NCAA Jerseys Wholesale College Jerseys Wholesale NCAA Jerseys Cheap Soccer Jerseys Wholesale Soccer Jerseys Cheap Soccer Jerseys Wholesale Soccer Jerseys

হাড়ের টিউমারের চিকিৎসা কথা

ডা. ছরওয়ার আলম
প্রকাশ : | সময় : ১২:৫৩ অপরাহ্ণ

ইয়াসমিন আক্তার। বয়স ৪৫ বছর। অনেকদিন ধরে তার বাম হাতের তালুর বুড়ো আঙ্গুলের গোড়ায় শক্ত প্রকৃতির টিউমার দেখা দিয়েছে। এর জন্য সার্জারি চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া হয়েছে। চিকিৎসক অপারেশনের পরামর্শ দিয়েছেন। সার্জারি চিকিৎসক বলেছেন, এটা হাড়ের টিউমার। অপারেশনের মাধ্যমে ইহা অপসারন করা যেতে পারে। রোগী অপারেশন পরবর্তী এটার বৃদ্ধি ও অন্যস্থানে আরো টিউমার দেখা দেয়ার বিষয় জানতে চাইলে চিকিৎসক সেই বিষয়ে আগে থেকে জানা যাবেনা বলে জানান। চিকিৎসক বলেন, এটা হতেও পারে আবার না ও হতে পারে। রোগের ভবিষ্যৎ ফলাফল নিয়ে রোগীনি বিষম দুশ্চিন্তায় আছেন। না জানি ইহার ফলাফল খারাপ হয় কিনা। এছাড় নানা জন নানা কথা বলে তার মনকে আরো বেশি দুর্বল করে দিয়েছে। অবশেষে অনেক চিন্তাভাবনা করে অনেকের পরামর্শ নিয়ে আমাদের নিকট এসেছেন। আমরা তার প্রাথমিক কথাবার্তা মনোযোগসহকারে শুনলাম। তারপর বললাম হাড়ের টিউমার বা বোন টিউমার একটা সার্জিক্যাল রোগ। অপারেশনের মাধ্যমে ইহার অপসারণ সম্ভব। তাই আপনি ইহার অপারেশন করে ফেলতে পারেন। রোগীনি বলেন, আমরা সার্জারি চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করেই আপনাদের নিকট এসেছি। অপারেশনেও কিছুটা সীমাবদ্ধতা আছে। পরবর্তীতে ইহার বৃদ্ধি সম্পর্কে সার্জারি চিকিৎসক নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না। তাই আমরা আপনাদের পরামর্শ নিতে এসেছি। হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় ইহা কেমন আরোগ্য হয়, তা জানতে এবং আরোগ্য হলে চিকিৎসা নিতে। দয়া করে আমাদেরকে সঠিক পরামর্শ দিবেন। আমরা বললাম অপারেশনযোগ্য অনেক রোগ অধিকাংশ ক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় আরোগ্য হয়। তবে হোমিওপ্যাথিক ঔষধের লক্ষণের সাথে রোগের লক্ষণ সদৃশভাবে মিলা লাগবে, তা না হলে কিন্তু হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় আরোগ্য হয় না, এটাই হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার বিশেষত্ব। আবার একই প্রকৃতির টিউমারের ক্ষেত্রেও অন্য চিকিৎসা পদ্ধতির মত হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় সব রোগীর একই ঔষধ হয় না। রোগীর মনমেজাজ খাদ্যাভ্যাস, আচার -আচরণ প্রভৃতি বিচারে একই প্রকৃতির রোগের ক্ষেত্রেও ব্যক্তিবিশেষে ঔষধ আলাদা হতে পারে। এর জন্য চিকিৎসকের প্রয়োজন ধৈর্য সহকারে হোমিওপ্যাথিক নিয়মানুযায়ী রোগীর রোগ বিবরণী শোনা এবং তা পর্যবেক্ষণ করে ঐ রকম লক্ষণ উৎপন্নকারী হোমিওপ্যাথিক সদৃশ ঔষধটি খুজে বের করে রোগীক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথিক নিয়মানুযায়ী প্রয়োগ করা। তাহলে হাড়ের টিউমার সহ যে কোন রোগের ক্ষেত্রে রোগীর রোগ আরোগ্য হবে জগতের অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতি থেকে অপেক্ষাকৃত কম সময়ে অর্থাৎ দ্রুত, বিনা কষ্টে, স্থায়িভাবে এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীনভাবে। এক কথায় আদর্শ আরোগ্য। এভাবে সময় দিয়ে মনোযোগের সহিত রোগীদেখার সময় অধিকাংশ চিকিৎসকের হয় না। তাই আরোগ্যসাধ্য অনেক রোগী সঠিক চিকিৎসা সেবা পান না। এটা অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমাদের চিকিৎসকেরই ব্যর্থতা। রোগীনি আমাদের কথায় সন্তুষ্ট হয়ে তার পূর্ণ রোগবিবরণী নিতে অনুরোধ করেন। তার মনে আত্মবিশ্বাস জন্মে, সৃষ্টিকর্তার দয়ায় বিনা অপারেশনে তার হাড়ের টিউমার আরোগ্য হবে।

আমরা তার পূর্ণাঙ্গ রোগীলিপি বা রোগবিবরণী নিয়ে নানা কথা থেকে বাছাই করে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ নির্ণায়ক যে লক্ষণাবলী পেলাম তা হল রোগীর বাম হাতের বড় আঙ্গুলে পাথরের মত শক্ত প্রকৃতির টিউমার। টিউমারের উপরের অংশ কিছুটা সূচাল। এটা দিন দিন বড় হচ্ছে। এমনিতে ব্যথাবেদনা নাই। কিছুর সাথে আঘাত লাগলে ব্যথা করে। ঐ স্থানে কোন আঘাতের ইতিহাস নাই। হাতের তালুর চামড়াও তুলনামূলক শক্ত। সাননের কয়েকটা দাঁত নড়ে কিন্তু দাঁতে কোন প্রকার ক্ষয় ও ব্যথা নাই, দাঁতে প্রায়ই পাথর জমে, পরিষ্কার করতে হয়। রোগী বিমর্ষ প্রকৃতির। সদা সর্বদা পরিবারের আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে চিন্তা বেশি করেন। কোষ্ঠবদ্ধতা আছে। রোগীর ঠান্ডা ও আদ্র আবহাওয়া অসহ্য।

আমরা উক্ত রোগীনির রোগীলিপি পর্যালোচনা করে তার হাড়ের টিউমারের ক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথিক যে ঔষধটির সাথে বেশি মিল পেয়েছি তা হল “ক্যাল্কেরিয়া ফ্লোরিকা”। উক্ত ঔষধ সেবনে অল্পকিছু দিনের মধ্যে তার হাড়ের টিউমার সম্পূর্ণরূপে আরোগ্য হয়। তার নড়া দাঁতগুলিও স্বাভাবিক হয়। এই রোগীর অপারেশনযোগ্য হাড়ের টিউমার বিনা অপাবেশনে, বিনা কষ্টে, অল্প সময়ে, স্থায়ীভাবে ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীনভাবে আরোগ্য হওয়াতে সে মহান সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞ।
লেখক: সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক পরিষদ, ফেনী জেলা।

আপনার মতামত দিন

error: Content is protected !!