ফেনীতে ৮ হাজার মেট্টিক টন বোরো ধান ও চাল কিনছে সরকার • নতুন ফেনীনতুন ফেনী ফেনীতে ৮ হাজার মেট্টিক টন বোরো ধান ও চাল কিনছে সরকার • নতুন ফেনী
 ফেনী |
১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৪ আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফেনীতে ৮ হাজার মেট্টিক টন বোরো ধান ও চাল কিনছে সরকার

নিজস্ব প্রতিনিধিনিজস্ব প্রতিনিধি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০২:৪৫ অপরাহ্ণ, ১২ মে ২০২০

ফেনীতে ৩ হাজার ৯৯৭ মেট্টিক টন বোরো ধান ও ৪ হাজার ৫৫৩ মেট্টিক টন চাল কিনছে সরকার। মঙ্গলবার সকালে জেলা খাদ্য গুদামে ধান সংগ্রহ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো: ওয়াহিদুজ্জামান। এবার ফেনীতে সরকার নির্ধারিত ২৬ টাকা দরে প্রতিকেজি ধান, ৩৫ টাকা দরে আতপ চাল ও ৩৬ টাকা দরে সেদ্ধ চাল সরাসরি কৃষকদের থেকে সংগ্রহ করবে খাদ্য বিভাগ। তবে জেলা কৃষি বিভাগ থেকে দেয়া কৃষকদের চুড়ান্ত তালিকার বাহিরে কারো থেকে খাদ্য বিভাগ চাল অথবা ধান সংগ্রহ করবেনা। এতে করে কৃষক তার উৎপাদিত ধান চাল সরাসরি সরকারকে ন্যার্য মূল্যে সরবরাহ করার মাধ্যমে লাভবান হতে পারবেন।

ফেনী সদর উপজেলা খাদ্য গুদাম রক্ষক মো: শাহীন মিয়া জানান, নিয়ম অনুযায়ী প্রতিজন কৃষক ২৬ টাকা মূল্যে সর্বোচ্চ ৩ টন পর্যন্ত ধান গুদামে দিতে পারবে। সরকার এ টাকা কৃষকের ব্যাংক একাউন্টে পরিশোধ করবেন। কৃষকদেরকে ধানের নমুনা কৃষি বিভাগ অথবা খাদ্য বিভাগ থেকে পরীক্ষার পর মান নিশ্চিত হয়ে সরকারী খাদ্য গুদামে ধান নিয়ে আসার অনুরোধ জানান এ কর্মকর্তা।

জেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য নিয়ন্ত্রক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ জানান, এবার ফেনীতে বোরো মৌসুমে ৯ হাজার ৯৯৭ মেট্টিক টন ধান সংগ্রহ করা হবে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ২৬১, ছাগলনাইয়ায় ৭৪১, দাগনভূঞায় ১ হাজার ২৩, পরশুরামে ৩০০, ফুলগাজীতে ৫৩৪ ও সোনাগাজীতে ১৩৮ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হবে।
তিনি জানান, একই সময়ে জেলায় ৩৬ টাকা দরে ২ হাজার ৭শ মেট্টিক টন সেদ্ধ চাল ও ৩৫ টাকা দরে ১ হাজার ৮৫৩ মেট্টিক টন আপত চাল সংগ্রহ করা হবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ পরিচালক মো: তোফায়েল আহম্মেদ চৌধুরী জানান, এবার ফেনীর ৬ উপজেলায় ২৬ হাজার ২১০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। ধান থেকে প্রায় ১ লাখ ১৯ হাজার মেট্রিক টন চাল উৎপাদন হতে পারে। মঙ্গলবার পর্যন্ত জেলায় ৫৫ ভাগ জমির ধান কৃষকরা ঘরে তুলেছে।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শহীদ উদ্দিন মাহমুদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফেনী কৃষি অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো: তোফায়েল আহম্মেদ চৌধুরী, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন সুলতানা, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমিন আক্তার, সদর উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক মো. শাহীন মিয়াসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা।

সম্পাদনা: এনকে/আরএইচ

আপনার মতামত দিন

Android App
Android App
Android App
© Natun Feni. All rights reserved. Design by: GS Tech Ltd.